সংবাদ শিরোনাম

 

 

ময়মনসিংহস্থ কমিউনিটি বেজড মেডিকেল কলেজ (সিবিএমসি) হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় ত্রিশাল উপজেলার কাকচর গ্রামের আহাম্মদ আলী নামে এক রোগীর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। পরে ওই রোগীর মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে রোগীর স্বজন ও ইন্টার্ণ চিকিৎসকদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। এর জের ধরে হাসপাতালের পরিচালকের কক্ষ ভাঙচুরসহ দুই পক্ষের পাঁচজন আহত হয়েছেন।

 

 

 

শনিবার (৫নভেম্বর) বিকেলে ময়মনসিংহ শহরের চুরখাই এলাকায় অবস্থিত সিবিএমসি হাসপাতালে আহাম্মদ আলী নামে এক রোগী মারা যান। তার মৃত্যুকে কেন্দ্র করে বিকেলে এ ঘটনা ঘটে।

 

এদিকে রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় কোহিনুর নামে এক নার্সকে সাময়িক বরখাস্ত করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। কমিটিকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

 

হাসপাতালের পরিচালক ডা. করিম খান জানান, এ ধরনের রোগীকে আমরা স্যালাইনের মাধ্যমে ইনজেকশন পুশ করার নির্দেশনা দিয়ে থাকি। কিন্তু নার্স সরাসরি ইনজেকশন পুশ করায় পার্শ্বপ্রতক্রিয়া হয়ে থাকতে পারে। আমরা তাৎক্ষণিকভাবেই কর্তব্যে গাফিলতির কারণে নার্সকে সাময়িক বরখাস্ত করেছি।

জানা গেছে, ত্রিশাল উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের কাকচর গ্রামের আহাম্মদ আলী বুকের ব্যথা নিয়ে গত বুধবার ভর্তি হন সিবিএমসি হাসপাতালে। রোগীর হার্টের সমস্যা শনাক্ত হওয়ায় হাসপাতালের ৭নং কার্ডিওলজি বিভাগে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

 

 

 

রোগীর স্বজনদের অভিযোগ, শনিবার দুপুরে চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী তার শরীরে চলমান স্যালাইনে ইনজেকশন পুশ করার কথা থাকলেও দায়িত্বরত নার্স কোহিনুর রোগীকে সরাসরি ইনজেকশন পুশ করেন। ইনজেকশন পুশ করার সঙ্গে সঙ্গেই রোগীর মৃত্যু হয়।

 

কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ কামাল আকন্দ জানান, খবর পেয়ে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরিবারের সদস্যদের আপত্তি না থাকায় ময়নাতদন্ত ছাড়াই মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।

 

 


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম