সংবাদ শিরোনাম

 

দুয়েকটি ব্যতিক্রম ঘটনা ছাড়া এবার ঈদযাত্রার শুরু থেকেই ট্রেনে স্বস্তিতে বাড়ি ফিরেছেন ঘরমুখো মানুষ। নির্দিষ্ট সময়ে ট্রেন ছাড়ায় এবং টিকিট ছাড়া কাউকে প্ল্যাটফর্মে ঢুকতে না দেওয়ায় ঈদযাত্রার শেষ দিনে এসেও ভোগান্তি ছাড়া বাড়ি ফিরছেন যাত্রীরা।

রোববার (১৬ জুন) সকালে কমলাপুর রেলস্টেশন ঘুরে ও যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে এ চিত্র দেখা যায়।

এদিন সকাল থেকে কমলাপুরে বাড়ি ফেরা যাত্রীদের চাপ ছিল। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সেই চাপ কমতে থাকে। এছাড়া প্রতিটি ট্রেনকেই প্রায় নির্দিষ্ট সময়ে প্ল্যাটফর্ম ছেড়ে যেতে দেখা যায়। ফলে ভোগান্তি ছাড়াই ট্রেনে চড়ে বাড়ি ফিরতে পারছেন যাত্রী।

সকাল ১০টায় কমলাপুর রেলস্টেশন ছেড়ে যাওয়ার কথা জামালপুরগামী জামালপুর এক্সপ্রেসের। ট্রেনটি ১০টা ৫ মিনিটে প্ল্যাটফর্ম ছেড়ে যায়।

পরিবারের সঙ্গে ঈদ আনন্দ করতে এ ট্রেনে করেই বাড়ি ফিরছিলেন বেসরকারি চাকরিজীবী নাজমুল হক। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, অনলাইনে টিকিট কেটে রেখেছিলাম। কোনো ভোগান্তি ছাড়াই প্ল্যাটফর্মে আসি। কোনো হুড়োহুড়ি নেই, ভোগান্তি নেই। ট্রেনে করে ঈদযাত্রা আগের থেকে অনেক স্বস্তিদায়ক হয়েছে।

একই ট্রেনে করে পরিবার নিয়ে শেরপুর যাচ্ছিলেন আমিরুল হাজ্জাজ জীবন। তিনি বলেন, টিকিট কাটা ছিল, আসন খুঁজে পেতেও সমস্যা হয়নি। তবে অনলাইনে টিকিট কাটতে অনেক বেগ পেতে হয়েছে। দুদিন চেষ্টা করার পর তৃতীয় দিন টিকিট পেয়েছি। না হলে আরও দুদিন আগে বাড়ি যেতে পারতাম।

সকাল সাড়ে ১০টার একটু পরে প্ল্যাটফর্ম ছাড়ে কিশোরগঞ্জগামী কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস। এ ট্রেনও নির্দিষ্ট সময়ে ছেড়ে যায়। এ ট্রেনের যাত্রী জারিন বলেন, কোনো ভোগান্তি নেই। ধাক্কাধাক্কি নেই। আগের মতো নিজের আসনে অন্য কেউ বসেও নেই। এখন ট্রেনে বাড়ি ফেরা অনেক স্বস্তির। আশা করি, ট্রেনও সঠিক সময়ে ছেড়ে যাবে।

ঢাকা রেলস্টেশনের ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ মাসুদ সারওয়ার বলেন, গত ১২ জুন রেলের ঈদযাত্রা শুরু হয়। আজ ঈদযাত্রার শেষ দিন। সকাল থেকে এখন পর্যন্ত সবগুলো ট্রেন যথাসময়ে ছেড়ে গেছে। যাত্রীরা নিরাপদে স্বস্তিতে গন্তব্যে পৌঁছাতে পারছেন। অন্যান্য দিনের তুলনায় আজ যাত্রীর চাপ কম ছিল। সবমিলিয়ে আমরা একটি সুন্দর ঈদযাত্রা যাত্রীদের উপহার দিতে পেরেছি।


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম