সংবাদ শিরোনাম

 

“সুস্থ পরিবেশ, স্মার্ট বাংলাদেশ” এই স্লোগানকে সামনে রেখে নান্দনিক ময়মনসিংহ করার প্রত্যয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর, ময়মনসিংহ বিভাগীয় কার্যালয়ের উদ্যোগে ময়মনসিংহ রেলওয়ে স্টেশনের সার্বিক পরিচ্ছন্নতা ও জলাধার সংরক্ষণ কার্যক্রম পরিচালিত হয়।
দিনব্যাপী সমন্বিত কার্যক্রম পরিবেশ অধিদপ্তরের আয়োজনে বাংলাদেশ রেলওয়ে ময়মনসিংহ, ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন, ময়মনসিংহ বন বিভাগ, জেলা প্রশাসন, ফায়ার সার্ভিস এবং জেলার একাধিক পরিবেশবাদী, সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন অংশগ্রহণ করেন।

শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) পরিবেশ অধিদপ্তর, ময়মনসিংহ বিভাগীয় কার্যালয়ের নেতৃত্বে নান্দনিক ময়মনসিংহ গঠনে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সহযোগিতায় সকাল ১০টা থেকে শুরু করে দিনব্যাপী সমন্বিত পরিছন্নতা কার্যক্রম পরিচালিত হয়।
পরিছন্নতা কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেন ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের ( মসিক) প্রধান নির্বাহী মোহাম্মদ ইউসুফ আলী, ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী, পরিবেশ অধিদপ্তর ময়মনসিংহ বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক (উপসচিব) দিলরুবা আহমেদ, ময়মনসিংহ বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আ.ন.ম. আব্দুল ওয়াদুদ, পরিবেশ অধিদপ্তর ময়মনসিংহ জেলার উপ-পরিচালক মো: মেজবাবুল আলম, ময়মনসিংহ রেলওয়ে সহকারী প্রকৌশলী মোঃ আকরাম আলী, ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক মোঃ মোফাজ্জল হোসেন, ময়মনসিংহ জেলার একাধিক পরিবেশবাদী, সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি দপ্তর প্রধানগন, কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিক্ষকমন্ডলীগন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ও গণমাধ্যম ব্যক্তিবর্গ।

স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সহযোগিতায় তিনটি ভাগে ভাগ হয়ে মোট ১৫০ জন শিক্ষার্থী সার্বিক পরিছন্নতা ও জলাধারের ময়লা আবর্জনা পরিষ্কার করেন।

মসিক প্রধান নির্বাহী যুব সমাজকে উদ্দেশ্য করে বলেন, স্মার্ট সিটিজেন হতে হলে কাউকে বিরক্ত করা যাবে না, পরিবেশ নোংরা করা যাবে না। স্মার্ট সিটি গড়ে তুলতে সবাইকে স্মার্ট হতে হবে। পরিচ্ছন্নতা ও ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। শুধু আমরা কাজ করলে চলবে না সবাইকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে। তাহলে আমরা একটি স্মার্ট নগরী উপহার দিতে পারব।

জেলা প্রশাসক বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলতে হলে আগে স্মার্ট নাগরিক হতে হবে। প্রত্যেক নাগরিককে পরিবেশ সংরক্ষণে সচেতন থাকতে হবে। শুধু পরিবেশ অধিদপ্তর এককভাবে পরিবেশ সংরক্ষণের কাজ করলে হবেনা। তাই আমরা যদি সম্মিলিতভাবে এবং সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করে কাজ করি তাহলে সবাই সাফল্য বয়ে আনতে পারব।

পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে সবাইকে স্মার্ট সিটিজেন হতে হবে। আমরা যদি স্মার্ট সিটিজেন হই তাহলে একটি পরিচ্ছন্ন দেশ উপহার দিতে পারব। ময়মনসিংহের সকল দপ্তরগুলো একযোগে কাজ করতে পারলে খুব অল্প সময়েই নান্দনিক ময়মনসিংহ গড়ে তোলা সম্ভব। ইতিমধ্যে আমরা পরিবেশ নিয়ে একটি যিধঃংধঢ়ঢ় গ্রুপ চালু করেছি। এতে সরকারি-বেসরকারি ও স্বেচ্ছাসেবী সহযোগী সংগঠন নিয়ে বড় পরিসরে সার্বিক পরিছন্নতা নিয়ে কাজ করার পরিকল্পনা রয়েছে।

এ সময় দপ্তর প্রধানগণ রেলওয়ে স্টেশনের দোকান ও আশেপাশের পরিবেশ পরিদর্শন করেন এবং পরিচ্ছন্নতা সামগ্রী উপহার দেন। কর্মকর্তারা রেলস্টেশনের দুধারে বৃক্ষরোপন কর্মসূচি উদ্বোধন করেন।

 


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম