সংবাদ শিরোনাম

 

ময়মনসিংহের ১১টি সংসদীয় আসনে মোট ৭২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এর মধ্যে জাতীয় পার্টি মনোনীত ৯ প্রার্থীসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়া ৫২ জন প্রার্থী পেয়েছেন প্রদত্ত বৈধ ভোটের ৮ ভাগের ১ ভাগেরও কম ভোট। তারা সবাই জামানত হারাচ্ছেন। সবচেয়ে কম ভোট পেয়েছেন রোকেয়া বেগম নামে এক নারী প্রার্থী। তিনি মাত্র ৪৪ ভোট পেয়েছেন।

নির্বাচনের ফলাফলে দেখা গেছে, ময়মনসিংহ-১ (হালুয়াঘাট-ধোবাউড়া) আসনে জাতীয় পার্টির কাজল চন্দ্র মহন্ত ৪৬৭ ভোট, তৃণমূল বিএনপির মার্শেল মালেশ চিরান ২৭৫ ভোট, ইসলামী ঐক্যজোটের মাহবুবুর রহমান ৩৫৮ ভোট, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের মো. মোখলেছুর রহমান ১২৬ ভোট ও বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের প্রার্থী রোকেয়া বেগম পেয়েছেন ৪৪ ভোট। অথচ এ আসনে ৪ লাখ ৫২ হাজার ৮৯৭ জন ভোটারের মধ্যে ১ লাখ ৭০ হাজার ৭৯৮ জন ভোট দিয়েছেন।

 

ময়মনসিংহ-২ (ফুলপুর-তারাকান্দা) আসনে ইসলামী ঐক্যজোটের মুহাম্মদ তৈয়্যেব হোসাইন ১৭৫৩ ভোট, জাতীয় পার্টির (জাপা) মো. এনায়েত হোসেন ২২৫১ ভোট, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের মো. কামরুল হাসান ৮৮৬ ভোট, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের প্রার্থী মো. তোফাজ্জল হোসেন ৫৯৮ ভোট, জাতীয় পার্টি (জেপি) শেখ আলা উদ্দিন ৭১৩ ভোট, বিএনপির সাবেক এমপি স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহ শহীদ সারোয়ার ১২০১৫ ভোট পেয়েছেন। এ আসনে ৫ লাখ ৪০ হাজার ৩৪৫ জন ভোটারের মধ্যে ভোট কাস্টিং হয় ২ লাখ ৮৫ হাজার ১৬৭ ভোট।

ময়মনসিংহ-৩ (গৌরীপুর) আসনে নাজনীন আলম ২২৫০ ভোট, জাতীয় পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান ৩৪৯ ভোট, তৃণমূল বিএনপির মো. জামাল উদ্দিন ১৫২ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী মোর্শেদুজ্জামান সেলিম ১০০ ভোট, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি) প্রার্থী মো. শফিউল আলম ১১৭ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. শরীফ হাসান ৯২২৬ ভোট, রমিজ উদ্দিন ৮৯৩ ভোট পেয়েছেন। এ আসনে ২ লাখ ৭৬ হাজার ৪০ জন ভোটারের মধ্যে ১ লাখ ২০ হাজার ৭৭১ ভোট কাস্টিং হয়।

ময়মনসিংহ-৪ (সদর) আসনে জাতীয় পার্টির আবু মো. মূসা সরকার ৫৭০২ ভোট, বাংলাদেশ কংগ্রেসের আবদুল মান্নান ২৮৮ ভোট, তৃণমূল বিএনপির প্রার্থী দীপক চন্দ্র গুপ্ত ২১৯ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য দেলোয়ার হোসেন খান দুলু ৯৬৮ ভোট, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের পরেশ চন্দ্র মোদক ২২০ ভোট, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের বিশ্বজিৎ ভাদুড়ী পেয়েছেন ২৬৮ ভোট, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) মো. হামিদুল ইসলাম পেয়েছেন ২১৪ ভোট, বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির সেলিম খান পেয়েছেন ২৪৭ ভোট পেয়েছে। এ আসনে ৬ লাখ ৫০ হাজার ২৮৪ জন ভোটারের মধ্যে ২ লাখ ৬২ হাজার ৮২০ ভোট কাস্টিং হয়েছে।

ময়মনসিংহ- ৫ (মুক্তাগাছা) আসনে জাকের পার্টির আজহারুল ইসলাম ৯৫০ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমেদ ৩৪৯৬ ভোট, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের মোহাম্মদ শাহীনুর আলম ৭৯৪ ভোট, বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির মো. রফিকুল ইসলাম রবি ২৫২ ভোট, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) মো. সামান মিয়া ৪৫৬ ভোট পেয়েছেন। এ আসনে ২ লাখ ৭৬ হাজার ৪০ জন ভোটারের মধ্যে ১ লাখ ২০ হাজার ৭৭১ ভোট কাস্টিং হয়।

ময়মনসিংহ-৬ (ফুলবাড়িয়া) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী খন্দকার রফিকুল ইসলাম ৩২৬৭ ভোট, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের প্রিন্সিপাল এম আবদুর রশিদ ২২৯ ভোট, জাতীয় পার্টির মোহাম্মদ মাহফিজুর রহমান (বাবুল) ৫২৫ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী সেলিম বেগম ২৫৪১ ভোট পেয়েছেন। এ আসনে ৩ লাখ ৮৫ হাজার ৯৮৫ জন ভোটারের মধ্যে ১ লাখ ২ হাজার ৮১৪ ভোট কাস্টিং হয়।

 

ময়মনসিংহ-৭ (ত্রিশাল) আসনে তৃণমূল বিএনপির ড. আবদুল মালেক ফরাজী ৪৮০ ভোট, জাতীয় পার্টির মো. আবদুল মজিদ ২০৬৫ ভোট পেয়েছেন। এ আসনে ৩ লাখ ৭৪ হাজার ৯৯৪ জনের মধ্যে ১ লাখ ২৭ হাজার ২৬ জনের ভোট কাস্টিং হয়েছে।

ময়মনসিংহ-৮ (ঈশ্বরগঞ্জ) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী কানিজ ফাতেমা ১৮৯ ভোট, ন্যাশনাল পিপল পার্টির (এনপিপি) মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন ৩৩৪ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী বদরুল আলম (প্রদীপ) ১৯৩ ভোট পেয়েছে। এ আসনে ৩ লাখ ২১ হাজার ৯২৮ জনের মধ্যে ৬৮ হাজার ৯৯০ জনের ভোট কাস্টিং হয়।

ময়মনসিংহ-৯ (নান্দাইল) আসনে তৃণমূল বিএনপির আবু জুনাঈদ ২৭৩ ভোট, জাতীয় পার্টির হাসমত মাহমুদ ৮৬৭ ভোট, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাদস) প্রার্থী মো. গিয়াস উদ্দিন ২০০ ভোট পেয়েছেন। এ আসনে ৩ লাখ ৫৭ হাজার ৫১৭ ভোটারের মধ্যে ১ লাখ ৪৯ হাজার ৩৮৫ জনের ভোট কাস্টিং হয়।

 

ময়মনসিংহ-১০ (গফরগাঁও) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী কায়সার আহাম্মদ ৩২৫০ ভোট, মোহাম্মদ আবুল হোসেন ৭৫১৯ ভোট, জাতীয় পার্টির প্রার্থী নাজমুল হক ৪২৭৬ ভোট, গণফ্রন্টের মো. দ্বীন ইসলাম ৩০৯৩ ভোট পেয়েছেন। এ আসনে ৩ লাখ ৮২ হাজার ৯৪৬ ভোটারের মধ্যে ২ লাখ ৩৭ হাজার ২৪৫ জনের ভোট কাস্টিং হয়েছে।

ময়মনসিংহ-১১ (ভালুকা) আসনে বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির এবিএম জিয়া উদ্দিন ১৭৮ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. গোলাম মোস্তফা ১৩৯ ভোট, তৃণমূল বিএনপির মো. নাসির উদ্দিন ৯৬ ভোট, ন্যাশনাল পিপল পার্টির (এনপিপি) মো. মজিবুর রহমান ১০৮ ভোট, জাতীয় পার্টির মো. হাফিজ উদ্দিন ৩২৮ পেয়েছেন। এ আসনে ৩ লাখ ৩৫ হাজার ৯৯৫ ভোটারের মধ্যে ১ লাখ ৫৪ হাজার ২৭৩ ভোট কাস্টিং হয়। নগণ্য ভোট পাওয়া এসব প্রার্থীদের জামানত বাজেয়াপ্ত হবে বলে জানিয়েছেন সিনিয়র জেলা নির্বাচন অফিসার মো. সফিকুল ইসলাম।

 


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম