সংবাদ শিরোনাম

 

ক্রীড়া ডেস্ক : ওয়েলিংটনে দ্বিতীয় ইনিংসে ৫৬ রানের লিড নিয়ে খেলতে নামে বাংলাদেশ দল। প্রথম ইনিংসে ৮ উইকেটে ৫৯৫ রানের বিশাল পাহাড় গড়ে সফরকারীরা। যার জবাবে ৫৩৯ রানেই গুটিয়ে যায় নিউজিল্যান্ডের প্রথম ইনিংস। ফলে ৫৬ রানের লিড নিয়েছে সাকিব-তামিমরা।

বৃহস্পতিবার (১২ জানুয়ারি) থেকে শুরু হওয়া এ টেস্টে টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করে বাংলাদেশ। সাকিব ও মুশফিকের অসাধারণ ইনিংসের সুবাদে দল ৫৯৫ রানে বিশাল স্কোর জমা করে ইনিংস ঘোষণা করে। বাংলাদেশের ছুড়ে দেওয়া বিশাল লিডের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ভালোই জবাব দিচ্ছিল স্বাগতিকরা। তবে নির্ধারিত লক্ষ্য থেকে ৫৬ রান দূরে থাকতেই সব উইকেট হারিয়ে বসে কেন উইলিয়ামসনের দল।

৫৬ রানে এগিয়ে থেকে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ভালোই শুরু করে বাংলাদেশ। তবে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারেননি। ১৩তম ওভারে চোট পেয়ে রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে মাঠ ছেড়েছেন ইমরুল। এরপরই ছন্দ হারায় বাংলাদেশ।

নিল ওয়েগনারের ওভারের পঞ্চম বলে একটি সিঙ্গেল রান নিতে গিয়ে পড়ে যান কায়েস। এর ফলে তিনি সোজা হয়ে দাড়াতেই পারছিলেন না। পরে তাকে স্ট্রেচারে করে মাঠ থেকে বের করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তার বদলে মাঠে নামেন মুমিনুল হক।

এরপরের ওভারেই মিচেল স্যান্টনারের বলে আউট হয়ে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেছেন তামিমও। আউট হওয়ার আগে ২টি চারের মারে ২৫ রান করেছেন। মুমিনুলের সঙ্গে এখন উইকেটে যোগ দিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ। তবে এই ইনিংসেও উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে পারেননি তিনি। মাত্র পাঁচ রান যোগ করেই সাজঘরে ফিরেছেন তিনি।

মাহমুদউল্লাহর বিদায়ে উইকেটে আসেন মেহেদি হাসান মিরাজ। আর প্রথম ইনিংসের মতো এই ইনিংসওে ব্যর্থ হয়েছেন তিনি। ব্যক্তিগত ১ রানে রান আউটের শিকার হয়ে ফিরেছেন তিনি। চতুর্থ দিনে বাংলাদেশ ৩ উইকেট হারিওেয় সংগ্রহ করেছে ৬৬ রান। ফলে দিন শেষে তাদের লিড দাঁড়িয়েছে ১২২ রান।

কিউইদের হয়ে ১টি করে উইকেট তুলে নিয়েছেন স্যান্টনার ও ওয়েগনার।

এর আগে রবিবার টেস্টের চতুর্থ দিনেও দারুণভাবেই খেলেছে নিউজিল্যান্ড। সকালে ৩ উইকেটে ২৯২ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই বেশ সাবলীল ছিলেন ল্যাথাম ও নিকোলস। বেশ দৃঢ়তার সঙ্গেই খেলছিলেন এ দুজন। পরে নিকোলাসকে ফিরিয়ে এ জুটি ভাঙেন সাকিব। আউট হওয়ার আগে নিকোলাসের সংগ্রহ ৫৩ রান। আর তাদের জুটি থেকে দলে রান আসে ১৪২টি।

পরে কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমকে (১৪) বেশিক্ষণ উইকেটে থাকতে দেননি শুভাশিস রায়। কিউই এ অলরাউন্ডারকে ইমরুল কায়েসের হাতে ক্যাচ বানিয়ে নিজের প্রথম টেস্ট উইকেটের স্বাদ নিয়েছেন অভিষিক্ত টাইগার পেসার।

অন্যদিকে ডাবল সেঞ্চুরির পথে হাঁটছিলেন ল্যাথাম। সেই সম্ভাবনার লাগাম টেনে ধরেন সাকিব। ল্যাথামকে ব্যক্তিগত ১৭৭ রানে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন টাইগার অলরাউন্ডার। ফেরার আগে ১৮ চার ও ১ ছয়ে ৩২৯ বলের ইনিংস সাজিয়েছেন কিউই ওপেনার।

এছাড়া দলের হয়ে বিজে ওয়াটলিং ৪৯ ও মিচেল স্যান্টনার ৭৩ রান করেন।

শনিবার ২৯২ রান তোলার পথে জিত রাভাল (২৭), কেন উইলিয়ামসন (৫৩), রস টেইলর (৪০) রানের অবদান রাখেন।

টাইগার বোলারদের হয়ে তিনটি উইকেট নিয়েছেন কামরুল ইসলারম রাব্বি এবং দুটি করে উইকেট তুলে নিয়েছেন সাকিব, মাহমুদউল্লাহ ও শুভাশিস। আর একটি উইকেট পেয়েছেন তাসকিন আহমেদ।

এর আগে টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করে বাংলাদেশ ৮ উইকেটে ৫৯৫ রান সংগ্রহ ইনিংস ঘোষণা করে। এ বিশাল সংগ্রহের পেছনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন বাংলাদেশের অভিজ্ঞ দুই খেলোয়াড় সাকিব আল হাসান (২১৭) ও মুশফিকুর রহিম (১৫৯)। সাকিব নিজের ক্যারিয়ারের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন আর মুশফিক করেছেন সেঞ্চুরি।

সংক্ষপ্তি স্কোর
বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ১৫২ ওভারে ৫৯৫/৮ ইনিংস ঘোষণা (তামিম ৫৬, ইমরুল ১, মুমিনুল ৬৪, মাহমুদউল্লাহ ২৬, সাকিব ২১৭, মুশফিক ১৫৯, সাব্বির ৫৪*, মিরাজ ০, তাসকিন ৩, রাব্বি ৬*; বোল্ট ২/১৩১, সাউদি ২/১৫৮, ডি গ্র্যান্ডহোম ০/৬৫, ওয়েগনার ৪/১৫১ স্যান্টনার ০/৬২, উইলিয়ামসন ০/২০)।

বাংলাদেশ ২য় ইনিংস: ১৮.৩ ওভারে ৬৬/৩ (তামিম ২৫, ইমরুল ২৪ রিটায়ার্ড হার্ট, মাহমুদউল্লাহ ৫, মিরাজ ১; স্যান্টনার ১/১৯, ওয়েগনার ১/১৪)

নিউজিল্যান্ড ইনিংস : ১৪৮.২ ওভারে ৫৩৯ (রাভাল ২৭, ল্যাথাম ১৭৭, উইলিয়ামসন ৫৩, টেইলর ৪০, নিকোলাস ৫৩, ওয়াটলিং ৪৯, স্যান্টনার ৭৩; রাব্বি ৩/৮৭, সাকিব ২/৭৮, মাহমুদউল্লাহ ২/১৫, তাসকিন ১/১৪১, শুভাশিস ২/৮৯)


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম