সংবাদ শিরোনাম

 

সরকারি চাকরিতে কোটাবিরোধী আন্দোলনে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি)। এ সময় আন্দোলনকারীরা ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা নেত্রকোনার মোহনগঞ্জগামী মহুয়া কমিউটার ট্রেনটিকে আটকে ইঞ্জিনের সামনে অবস্থান নেয়।

বুধবার (৩ জুলাই) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে জব্বারের মোড় রেলক্রসিং এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল করে বেলা সাড়ে ১২টা থেকে ২টা পর্যন্ত রেলপথ অবরোধ করে রাখে আন্দোলনকারীরা। এতে দুর্ভোগে পড়েন সাধারণ যাত্রীরা।

এর আগে সারা দেশের ন্যায় বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়েও কোটাবিরোধী আন্দোলনের অংশ হিসাবে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করে কুশপুত্তলিকা দাহ করেন শিক্ষার্থীরা। পরে তারা বাকৃবি জব্বারের মোড় রেলক্রসিংয়ে লাল কাপড় দেখিয়ে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা ময়মনসিংহগামী মহুয়া কমিটার ট্রেনটি থামিয়ে ইঞ্জিনের সামনে অবস্থান নেয়। এতে ঢাকা-ময়মনসিংহ রেলপথে ট্রেন যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়।

মো. ইরান মিয়া নামের এক শিক্ষার্থী বলেন, চাকরিতে আমরা কোনো ধরনের বৈষম্য চাই না। কিন্তু কোটা পদ্ধতি বৈষম্য সৃষ্টি করেছে। আমরা চাই প্রকৃত মেধাবীরা চাকরিতে আসুক, এতে কোন বৈষম্য চাই না।

মারিয়া জান্নাত নামে আরেক শিক্ষার্থী বলেন, আমার শ্বশুর একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। তারপরেও আমি কোটাবিরোধী আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেছি। আমি চাই না আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম কোটার দোহাই দিয়ে চাকরিতে আসুক। কোটা পদ্ধতি বাতিল করা উচিত।

ময়মনসিংহ হয়ে মোহনগঞ্জগামী মহুয়া কমিউটার ট্রেনের সুপারভাইজার মো. সারোয়ার হোসেন বলেন, শিক্ষার্থীরা লাল কাপড় টানিয়ে ট্রেন থামাতে বাধ্য করে। এতে প্রায় ঘণ্টাখানেক ট্রেনটি আটকা পড়ে।

এবিষয়ে ময়মনসিংহ রেলওয়ে থানার উপরিদর্শক দীপক পাল বলেন, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণে মহুয়া কমিউটার ট্রেনটি বাকৃবি এলাকায় এক ঘণ্টা আটকা ছিল। বর্তমানে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন স্থগিত করায় ঢাকা-ময়মনসিংহ রেলপথে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম