সংবাদ শিরোনাম

 

ঈদের ছুটি শেষে কর্মজীবী মানুষেরা ঢাকা ফিরতে শুরু করেছেন। তবে ঈদ যাত্রায় ফিরতি ট্রেনে যাত্রীর চাপ খুব বেশি নেই।

কারণ অনেকে পরিবারকে রেখে একাই ঢাকা ফিরছেন।
অন্যদিকে ঈদের আগে যারা বাড়ি যেতে পারেননি তারা অনেকে ঢাকা ত্যাগ করছেন।

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) সকালে রাজধানীর কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে ঈদ যাত্রা শেষে ফিরতি মানুষের থেকে ঢাকা ত্যাগ করা মানুষের উপস্থিতি বেশি। অধিকাংশ মানুষই ঢাকা ছেড়ে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছেন। কেউ কেউ আবার টিকিট সংগ্রহ করতে ব্যস্ত।

রংপুর থেকে ঢাকা এসেছেন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মজীবী শুভ। তিনি বলেন, ঈদের ছুটিতে বাড়িতে গিয়েছিলাম পরিবারসহ। তবে ছুটি তাড়াতাড়ি শেষ হওয়ায় পরিবারের অন্যদের রেখে এসেছি, আজকে এ অবস্থায় সরাসরি অফিস ধরবো।

দিনাজপুর থেকে ফিরে শামীম বলেন, এবার ঈদে মাত্র চার দিনের ছুটি পেয়েছিলাম। ছুটি শেষ করে বাড়ি থেকে ফিরলাম।

এদিকে ঢাকা কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে নাটোরে যাবেন শাহেদ রহমান। একটি সেবা প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন তিনি।

তিনি বলেন, আমাদের অফিসে একবারে সবাইকে ছুটি দেওয়ার সুযোগ নেই। গত ঈদে আমি ছুটি কাটানোয় এই ঈদে ছুটি পাইনি। এজন্য আজ থেকে অন্যরা ডিউটি করবেন তাই আমি ছুটিতে যাচ্ছি।

ঈদের আগের দিন পর্যন্ত রাজধানী থেকে প্রায় ৭০ জোড়া ট্রেন ছেড়ে গেলেও ঈদের দিন মাত্র মাত্র একটি মেইল ট্রেন চলেছে। তবে গত মঙ্গলবার ঈদের দ্বিতীয় দিন কমলাপুর থেকে দুই তৃতীয়াংশ ট্রেন চলাচল করেছে।

অন্যদিকে গতকাল বুধবার থেকে সব ট্রেন চলাচল করছে বলে জানিয়েছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার আনোয়ার হোসেন বলেন, ঈদের পরে সব ট্রেন চলে না।
আজ থেকে সব ট্রেন চলাচল শুরু করেছে, একসঙ্গে অগ্রিম টিকিটের যাত্রাও শুরু হয়েছে।

এদিকে রেলের ফিরতি যাত্রার টিকিট ১০ জুন থেকে বিক্রি হয়েছে। আন্তঃনগর ট্রেনের ২০ জুনের আসন বিক্রি হয় ১০ জুন; ২১ জুনের আসন বিক্রি হয় ১১ জুন; ২২ জুনের আসন বিক্রি হয় ১২ জুন; ২৩ জুনের আসন বিক্রি হয় ১৩ জুন; ২৪ জুনের আসন বিক্রি হয় ১৪ জুন। ২০ থেকে ২৪ জুন পর্যন্ত ঢাকার বাইরে থেকে যাত্রীরা ঢাকায় ফিরবেন।


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম