সংবাদ শিরোনাম

 

নিগার সুলতানা জ্যোতি ও মুর্শিদা খাতুনের দারুণ ব্যাটিংয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়েছ বাংলাদেশ। দুজনের ঝোড়ো ব্যাটিংয়ে বাঘিনীরা প্রথম ইনিংসে ১৪৯ রানের ম্যাচ জয়ের ভিত পেয়ে যায়। বাকি দায়িত্ব ছিল বোলারদের ওপর। সেখানে ‘গোল্ডেন এ প্লাস’ পেয়েছেন স্বর্ণা আক্তার।
তার ৫ শিকারে প্রোটিয়া মেয়েদের ইনিংস থেমেছে ১৩৬ রানে। ফলে ঘরের মাঠে দক্ষিণ আফ্রিকা টি-টোয়েন্টিতে প্রথমবারের মতো বাঘিনীদের কাছে ১৩ রানে হেরেছে। এমন জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ।

বেনোনির উইলোমুর পার্কে টসে জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। শুরু থেকে চালিয়ে খেলছিলেন দুই ওপেনার শামিমা সুলতানা এবং মুর্শিদা খাতুন। উদ্বোধনী জুটি থেকে রান আসে ৪৪। ২৪ বলে ২৪ রানের ইনিংস খেলে আউট হন শামিমা।

এরপর তিনে নামা সোবহানা মোস্তারিকে সাথে নিয়ে এগোতে থাকেন মুর্শিদা। ব্যাট হাতে দারুণ সাবলীল ছিলেন মুর্শিদা। তার দারুণ ব্যাটিংয়ের ফলে বড় সংগ্রহের স্বপ্ন দেখতে থাকে বাংলাদেশ। সোবহানা খুব বেশিক্ষণ টেকেননি ক্রিজে। ১৭ বলে ১৬ রান করে দলীয় ৮৩ রানের মাথায় আউট হন সোবহানা।

এরপর অধিনায়ক নিগার সুলতানা জ্যোতি এবং মুর্শিদার ব্যাটে চড়ে এগিয়েছে বাংলাদেশের ইনিংস। শেষ দিকে নেমে ঝড় তুলেছিলেন জ্যোতি। মুর্শিদাও ছিলেন দারুণ সাবলীল। দুজনের কার্যকরী ব্যাটিংয়ের ফলেই চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ দাঁড় করায় বাংলাদেশ। ফিফটি হাঁকিয়ে ৫৯ বলে ৬২ রানের ঝলমলে এক ইনিংস খেলে শেষপর্যন্ত টিকে ছিলেন মুর্শিদা। অন্যদিকে ২১ বলে ৩৪ রানের ক্যামিও খেলে অপরাজিত ছিলেন জ্যোতি। নির্ধারিত ২০ ওভারের খেলা শেষে ২ উইকেট হারিয়ে ১৪৯ রানের সংগ্রহ দাঁড় করায় বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে ১টি করে উইকেট নেন ননদুমোসি শাঙ্গাসি এবং এলিয-মারি মার্ক্স।

জবাব দিতে নেমে দক্ষিণ আফ্রিকাকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন আন্নেকে বশক এবং তাজমিন ব্রিটস। মারমুখি ব্যাটিংয়ে শুরুতেই দলের কাজ অনেকখানি এগিয়ে দেন দুজন। উদ্বোধনী জুটি থেকে রান আসে ৬৯। ২৬ বলে ৩০ রান করে আউট হন ব্রিটস।

সঙ্গীকে হারালেও দমে যাননি বশক। এক প্রান্ত আগলে রেখে সাবলীল ব্যাটিংয়ে দলের রান বাড়িয়ে নিচ্ছিলেন বশক। উইকেটের চারপাশে দৃষ্টিনন্দন সব শটে রান বাড়াতে থাকেন এই প্রোটিয়া ওপেনার। হাঁকান দারুণ এক ফিফটিও।

ফিফটির পরেও ছুটতে থাকেন বশক। আরেক প্রান্তে কেউ খুব বেশিক্ষণ টিকতে পারছিলেন না। ৪৯ বলে ৬৭ রানের ইনিংস খেলা বিশক আউট হন দলের ১২৩ রানের মাথায়। সেখান থেকে ঘুরে যেতে শুরু করে খেলা। বল হাতে যেন রুদ্রমূর্তি ধারণ করেন স্বর্ণা আক্তার। একে একে পাঁচ উইকেট শিকার করেন দক্ষিণ আফ্রিকাকে গুঁড়িয়ে বাংলাদেশকে জয় এনে দেন স্বর্ণা। দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তনে ১৩ রানের দারুণ এক জয় পায় বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের হয়ে ৫ উইকেট শিকার করেন স্বর্ণা। এছাড়া ১টি করে উইকেট নেন রাবেয়া খান, নাহিদা আক্তার এবং ফাহিমা খাতুন।

 


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম