সংবাদ শিরোনাম

 

 

আগুন সন্ত্রাসীদের প্রতিহত করতে দেশের জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, তাদের এ বর্বরতা আর চলতে দেওয়া যায় না। তাদের এ নৃশংসতা আর চলতে দেওয়া যায় না।

আমরা এ আগুন সন্ত্রাসীদের নির্মূল করতে বদ্ধপরিকর।
রোববার (১৭ ডিসেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘রাজনীতির নামে জ্বালাও পোড়াও ও নাশকতা বন্ধে’র দাবিতে মিডিয়া ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড পিস আয়োজিত এক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সমাবেশে তথ্যমন্ত্রী বলেন, একটি গাড়ি বা বাস পুড়িয়ে দেওয়া মানে একটি পরিবার পুড়িয়ে দেওয়া, একটি পরিবারের স্বপ্ন পুড়িয়ে দেয়া। এ গাড়ি- ঘোড়ায় যারা চলাচল করেন, তারা সাধারণ মানুষ। তারা রাজনীতি বোঝেন না, রাজনীতি করেন না। তাদের ওপর যারা হামলা চালায়, তারা কিসের রাজনীতি করে? এরা দেশের শত্রু, সমাজের শত্রু, রাষ্ট্রের শত্রু।

তিনি বলেন, আগে যারা বিএনপি-জামায়াতকে বাতাস দিত, তারা এখন তাদের বাতাস দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে। তারা বুঝতে পেরেছে তারা এমনই সংগঠন, তাদের বাতাস দিলে হয় না, ভিটামিন ট্যাবলেট দিলেও হয় না। তারা দাঁড়াতে পারে না।

আওয়ামী লীগের এ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, রাজনীতিতে কিছু ছোট ছোট দল আছে। এরা আবার বিএনপির মিত্র। এরা ব্যাঙের ছাতার মতো, কিন্তু এদের আওয়াজ বড়। নির্বাচনে দাঁড়ালে এক হাজার ভোটও পায় না। এর আগে সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে একজন দাঁড়ালেন, যিনি ঢাকা শহরের ৩৫ লাখ ভোটের মধ্যে এক হাজার, দেড় হাজার ভোট পেয়েছিলেন। ব্যাঙের ছাতারাও এখন বুঝতে পেরেছে, বিএনপির সঙ্গে থেকে কোনো লাভ নেই।

 

তিনি আরও বলেন, ২৮ অক্টোবর মহাসমাবেশের নামে বিএনপি যেভাবে পুলিশ হাসপাতালে হামলা চালিয়ে আইসিইউ অ্যাম্বুলেন্সসহ ১৯ টি গাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে, তা ইসরায়েলি বাহিনীর বর্বরতাকেই মনে করিয়ে দেয়। সেখানে তারা শুধু গাড়ি পুড়িয়েছে তা নয়, সেখানে নার্সদেরও অপদস্থ করা হয়েছে। আমাদের দলের নারী কর্মীরা যখন মিছিল নিয়ে যাচ্ছিলেন, তখন তাদের কাপড় ধরেও টানাটানি করেছিল।

বিএনপি ৩২ জন সাংবাদিককে তারা পিটিয়েছে, আহত করেছে জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, একজন সাংবাদিককে মাটিতে ফেলে সাপ পেটানোর মতো যেভাবে পিটিয়েছে তা মধ্যযুগীয় বর্বরতাকেও হার মানায়। এটি কোনো রাজনীতি নয়, এটি হলো জঘন্য সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড। তাদের এ ধরনের আগুন সন্ত্রাস, বাস ড্রাইভার-হেলপারকে পুড়িয়ে হত্যা করা, গাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া এগুলো কোনো রাজনীতি নয়। এগুলোকে অপরাজনীতি বললেও ভুল হবে। পৃথিবীর কোথাও গত কয়েক দশকে রাজনীতির নামে এমন নৃশংসতা হয়নি, যা বিএনপি-জামায়াত করছে।

 

আগামী নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, সব ষড়যন্ত্রকে উপড়ে ফেলে দেশে নির্বাচনী পরিবেশ তৈরি হয়েছে। জনগণের ব্যাপক অংশগ্রহণে একটি সুন্দর-সুষ্ঠু নির্বাচন আমরা দিতে পারব।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিনের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন মিডিয়া ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড পিস সংগঠনের অন্যান্য সদস্যরা। উপস্থিত ছিলেন ডিইউজের যুগ্ম সম্পাদক খায়রুল আলম সহ আরও অনেকে।

 


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম