সংবাদ শিরোনাম

 

 

ময়মনসিংহের নান্দাইলে ক্ষমতার জানান দিতে প্রকাশ্যে আগ্নেয়াস্ত্র হাতে মহড়া দিয়েছেন সাবেক এমপি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মেজর জেনারেল (অব:) আব্দুস সালাম, তার জামাতা ও অনুসারীরা।

রোববার (১২ নভেম্বর) নান্দাইল পৌর শহরে এ ঘটনা ঘটে। লাইসেন্সকৃত আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে এ ধরনের মহড়া বেআইনী বলছে প্রশাসন। বিষয়টি নজরে আসায় অস্ত্রধারী ব্যক্তিকে খুঁজতে শুরু করেছে পুলিশ। বিষয়টি নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে পুরো নান্দাইলে।

রোববার নান্দাইলে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের আয়োজন করে নান্দাইল উপজেলা আওয়ামী লীগ। জানা গেছে, গত ২৯ অক্টোবর সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী রঞ্জিত কুমার বর্মণ একটি আইনী নোটিশ দেন সাবেক এমপি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মেজর জেনারেল আব্দুস সালাম (অব:) সহ ৬ জনকে। কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরের সিদ্দিক হোসেনের পক্ষে নোটিশটি দেওয়া হয়। নোটিশে বলা হয়েছিল ঋণ খেলাপির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ২০১৩ সালে হাইকোর্টের রায়ে মেজর জেনারেল আব্দুস সালাম (অব:) এর সংসদ সদস্য পদ অবৈধ ঘোষণা করা হয়। তাই সংসদ সদস্য থাকা অবস্থায় নেওয়া রাষ্ট্রীয় আর্থিক সুবিধা (শুল্কমুক্ত গাড়িসহ) ১৫ দিনের মধ্যে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে ফেরত দিতে বলা হয়। নোটিশটি নিয়ে গত ৩১ একটি একটি সংবাদ মাধ্যম ‘সাবেক এমপির নেওয়া আর্থিক সুবিধা ফেরত চেয়ে আইনি নোটিশ’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করে। সংবাদ প্রকাশের জেরে সাংবাদিকসহ কয়েকজনকে লিগ্যাল নোটিশ দিয়েছে উপজেলা শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক শফিউল আলম রাসেল।

নৈরাজ্য সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশনা ও অপপ্রচারের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশটি করা হয়। সেই মিছিলের অগ্রভাগে শটগানসহ দেখা যায় অস্ত্রধারী মো. কামরুজ্জামানকে। তিনি বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জ উপজেলার মো. দেলোয়ার হোসেনের ছেলে। কামরুজ্জামান অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল আব্দুস সালামের জামাতা জাহিদ হাসান প্রিতমের গানম্যান।

রোববার বেলা ১২টার দিকে পৌর এলাকায় প্রকাশ্যে অস্ত্র হাতে মহড়া দিতে দেখা গেছে তাদের। নান্দাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম শাহান এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ওই বিক্ষোভ সমাবেশে নান্দাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য (প্রাক্তন) মেজর জেনারেল আব্দুস সালামের মেয়ের জামাতা জাহিদ হাসান প্রিতমের গানম্যানকে অস্ত্র হাতে মহড়া দিতে দেখা গেছে। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম শাহান শটগান হাতে মহড়া দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, আমি বিষয়টি আগে জানতাম না। জানার পর অস্ত্রধারী কামরুজ্জামানকে বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে দূরে সরিয়ে দেই।

ময়মনসিংহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম) শামিম হোসেন বলেন, প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া দিতে পারে না। বিষয়টি পুলিশের নজরে এসেছে। আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি।

ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক মো. মোস্তাফিজার রহমান বলেন, কারও কাছে লাইসেন্সধারী অস্ত্র থাকলেও তা প্রকাশ্যে প্রদর্শন করার সুযোগ নেই। আমরা খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম