সংবাদ শিরোনাম

 

পদ্মা সেতু নির্মাণে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন বন্ধের পেছনে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূসের ভূমিকা ছিল, এমন অভিযোগ তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি ইউনূসের সমালোচনা করে বলেছেন, একজন নোবেল বিজয়ী সামান্য একটা এমডি পদের জন্য লালায়িত কেন?

শুক্রবার (৫ জুলাই) বিকেলে মুন্সিগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে পদ্মা সেতু প্রকল্পের সমাপনী উপলক্ষে আয়োজিত সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শেখ হাসিনা এ কথা বলেন।

ইউনূসের গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি থাকার প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একটা পদ। সেটা হলো একটা ব্যাংকের এমডির পদ। এ পদটা নিয়ে যত জটিলতা, যত সমস্যা। এখন ব্যাংকে যদি আইন থাকে, একজন ২০ বছর থাকতে পারবে। ইতোমধ্যে তার বয়স ৭০ হয়ে গেছে। অতিরিক্ত সময় থেকে ফেলেছ। তারপরও সে সেখানে থাকে কী করে? একজন নামিদামি নোবেল বিজয়ী সামান্য একটা এমডি পদের জন্য লালায়িত কেন? এই প্রশ্নের উত্তর কখনো পেলাম না। ’

যুক্তরাষ্ট্রের দিকে ইঙ্গিত করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘যে বড় দেশে তাকে (ড. ইউনূস) প্রমোট করে, সেদেশের রাষ্ট্রদূত আমার অফিসে আসে। আমার অফিসারদের ধমকায়। বলে, এই এমডির পদ না থাকলে এই টাকা (পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন) বন্ধ হয়ে যাবে। এই এমডি পদের জন্য আমার কাছে তদবির করতে হিলারি ক্লিনটন (তৎকালীন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী) দুইবার ফোন করলেন। শেরি ব্লেয়ার ফোন করলেন। ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের প্রতিনিধি এলো। পৃথিবীর অনেকেই এলো। আমি শুধু জিজ্ঞেস করলাম, এই এমডি পদে কী মধু আছে?’

তিনি বলেন, ‘হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ব্যাংক করলেন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসরকে এনে এমডি হিসেবে বসালেন। সেই প্রফেসর আর ওই চেয়ার ছাড়তে চান না। আমাদের অর্থমন্ত্রী মুহিত সাহেব ও পররাষ্ট্র উপদেষ্টা গওহর রিজভী সাহেব ওনার কাছে গিয়ে বললেন, আপনি আর এমডি থাকবেন কোন, আপনি বরং এখানে উপদেষ্টা হিসেবে থাকেন। তাতেও তিনি রাজি নন। তিনি মামলা করলেন সরকারের বিরুদ্ধে। ‍দুটি মামলা। সবাই ঘাবড়ে গেল। আমি অ্যাটর্নি জেনারেলকে বললাম, এটা তো তেমন কিছু না। খালি আইনটা উপস্থাপন করবেন। কোর্ট যদি পারে, কারও বয়স বাড়াতে বাড়াক। পরে তিনি মামলায় হেরে গিয়ে আরও ক্ষেপে গেলেন। আর তার ওই রাষ্ট্রদূতের আনাগোনা তো চলছেই। বারবার পিএমওতে আসে আর একই কথা শোনায়। পরে একজন আন্ডার সেক্রেটারি এলেন, ওই একই কথা বললেন। পরে আমি বললাম, আর কেউ আমেরিকা থেকে এলে আমি দেখা করবো না, কথা বলবো না। পরে আমি আর কারও সঙ্গে দেখা করি নাই। ’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও একই প্রশ্ন। আমি খালি বলেছি, ওই পদে কী মধু আছে। এখন একটা কথা বলি। এমডি পদে যে কী মধু, এখন যদি দেখেন খোঁজ পাবেন। শ্রমিকরা মামলা করলে, গ্রামীণ ব্যাংকের অডিট রিপোর্ট আসলে আরও তথ্য বেরুবে। ’

অনেক ঝড়-ঝাপটা পার করে পদ্মা সেতু নির্মাণ করতে হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী‌ বলেন, ‘সাধারণত কোনো প্রকল্প শেষ হলে সেই শেষ হওয়ার অনুষ্ঠান হয় না। কখনো করা হয় না, শেষ হয়ে যায়। তবে পদ্মা সেতু অনেক ঝড়-ঝাপটা পার করে অনেক বাধা অতিক্রম করে নির্মাণ করতে হয়েছে। দেশের জনগণের টাকায় পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। পদ্মা সেতুর সঙ্গে যারা জড়িত, যারা জমি দিয়েছে, তাদের প্রতি ধন্যবাদ জানাতে এই অনুষ্ঠান আয়োজন করেছি। এটি সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানানোর অনুষ্ঠান। ’

নিজের টাকায় পদ্মা সেতুর নির্মাণের ইতিহাস বলতে গিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, ‘যে জাতি রক্ত দিয়ে দেশ স্বাধীন করলো, সে জাতি কেন মাথা নিচু করে চলবে? অকুতোভয় জাতিকে একেবারেই মর্যাদাহীন করে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। ’

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বক্তব্য রাখেন সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, সেতু বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. মনজুর হোসেন ও পদ্মা বহুমুখী সেতুর প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই পদ্মা সেতুর থিম সং প্রচার করা হয়। এছাড়া পদ্মা সেতুর ওপর একটি প্রামাণ্য চিত্র দেখানো হয়। সুধী সমাবেশে সেতুমন্ত্রী এবং সেতু মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা স্মারক দেওয়া হয়।

২০০১ সালের ৪ জুলাই পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০১৪ সালের ২৬ নভেম্বর মূল পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। ২০১৫ সালের ১২ ডিসেম্বর নির্মাণকাজের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

২০২২ সালের ২৫ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রমত্তা পদ্মা নদীর বুকে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের দেশের বৃহত্তম এ সেতুর উদ্বোধন করেন। ২০২৩ সালের ১০ অক্টোবর পদ্মা সেতু রেল সংযোগ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। উদ্বোধনের পর থেকে পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে নিয়মিত গাড়ি ও ট্রেন চলছে।

বহুমুখী এ সেতু নির্মাণ প্রকল্পে মোট ব্যয় ধরা হয়েছিল ৩২ হাজার ৬০৫ কোটি ৫২ লাখ টাকা। এর মধ্যে অবশ্য এক হাজার ৮৩৫ কোটি ৬৮ লাখ টাকা সাশ্রয় হয়েছে।

পদ্মা সেতু সরাসরি দেশের দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পশ্চিমের ২১ জেলাকে রাজধানীর সঙ্গে যুক্ত করেছে এবং আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে।


মতামত জানান :

 
 
 
কপিরাইট © ময়মনসিংহ প্রতিদিন ডটকম - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম